সভাপতি বহিস্কার-সম্পাদক কারাগারে, তবুও বহাল ছাত্রলীগের কমিটি

ঢাকার কামরাঙ্গীরচর থানা ছাত্রলীগের সভাপতি পারভেজ হোসেন বিপ্লবকে কয়েক মাস আগে বিভিন্ন অভিযোগে বহিস্কার করার কয়েক মাসের মাথায় একই থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এম এইচ মাসুদ মিন্টুকে ককটেলসহ গ্রেফতার করছে পুলিশ।

কিশোর গ্যাং এর হোতা এইচ এম মাসুদ মিন্টুর বিরুদ্ধে চাঁদা না পেয়ে এক ব্যবসায়ীকে রাস্তায় ফেলে কোঁপানোর অপরাধে জেলে পাঠানো হয়। আটকের সময় তার কাছে কয়েকটি বিস্ফোরক দ্রব্য ছিল বলেও জানায় কামরাঙ্গীরচর থানা পুলিশ।

থানা ছাত্রলীগের সভাপতিকে বহিস্কার করার পর অন্য কাউকে দায়িত্ব দেয়া হয়নি। এরই মধ্যে সাধারণ সম্পাদক জেলে যাওয়ার পরেও সাধারণ সম্পাদককে সাংগঠনিক কোন ব্যবস্থা নেয়নি মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগ।

জানা যায়, কিশোর গ্যাং এর হোতা কামরাঙ্গীর চর থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এইচ এম মাসুদ মিন্টু ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জোবায়ের আহমেদের অনুসারী। বছর খানেক আগে এই কমিটি ঘোষনা করার সময় জুবায়ের আহমেদই মিন্টুকে সাধারণ সম্পাদক করেছিলেন।

গত মঙ্গলবার রাতে শামীম নামের এক গার্মেন্ট ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে মারধর করে চাঁদা আদায়ের সময় কামরাঙ্গীরচর থানা পুলিশ তার এক সহযোগী ও ককটেলসহ তাকে গ্রেফতার করে। এ সময় ওই ব্যবসায়ীকে গুরুতর আহতাবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ব্যাপারে কামরাঙ্গীরচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, “সোমবার রাতে চাঁদা না পেয়ে শামীম নামের এক ব্যবসায়ীকে তুলে এনে রাস্তায় ফেলে মারধর করার অপরাধে থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এম এইচ মাসুদ মিন্টুকে এক সহযোগীসহ কামরাঙ্গীরচর থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে।”

কামরাঙ্গীরচর থানা ছাত্রলীগের সভাপতি নানা অপরাধে বহিস্কার থাকা অবস্থায় সাধারণ সম্পাদক চাঁদাবাজির অপরাধে জেলে থাকার পরেও কেন সাধারণ সম্পাদককে বহিস্কার করা হচ্ছে না জানতে চাইলে দক্ষিনের সভাপতি মেহেদী হাসান বলেন,“ শীঘ্রই আমরা সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেব।”

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জোবায়ের আহমেদের অনুসারী হিসেবে পরিচিত কিশোর গ্যাং এর হোতা এইচ এম মাসুদ মিন্টুকে কেন বহিস্কার করা হচ্ছে না এ ব্যপারে জানার জন্য বহুবার যোগাযোগ করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

২০১৯ সালের শেষের দিকে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান ও সাধারণ সম্পাদক জোবায়ের আহমেদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে পারভেজ হোসেন বিপ্লবকে সভাপতি ও এইচ এম মাসুদ মিন্টুকে সাধারণ সম্পাদক করে কামরাঙ্গীরচর থানা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়। এক বছর মেয়াদী এই কমিটি ইতোমধ্যে মেয়াদউত্তীর্ণ ।