কারাগারে তুষারকাণ্ডে কারাবিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিয়ম ভেঙে কারাগারে হল-মার্ক কর্মকর্তা তুষার আহমেদের নারী সাক্ষাতের বিষয়ে দোষী কারা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কারাবিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

তিনি বলেছেন, “এ ঘটনায় ইতিমধ্যে কারাগারের জেল সুপার, ডেপুটি জেলসুপার, প্রধান কারারক্ষীসহ ৫ জনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

“তদন্ত কমিটি কাজ করছে। জেলকোড অনুযায়ী অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”

মঙ্গলবার বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) নবনির্বাচিত কার্যনির্বাহী কমিটির সঙ্গে মতবিনিময় সভায় সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন তিনি।

মহামারীর মধ্যে কারাবন্দিদের সঙ্গে বাইরের কারও দেখা করার সুযোগ না থাকলেও চলতি মাসের শুরুতে কারা কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় তুষারের সঙ্গে এক নারীর সাক্ষাতের ভিডিও প্রকাশিত হলে তা আলোচনার জন্ম দেয়।

এরপর গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার-১ এর জেল সুপার রত্না রায়, জেলার নূর মোহাম্মদ, ডেপুটি জেলার গোলাম সাকলাইন, সার্জেন্ট ইন্সট্রাক্টর মো. আব্দুল বারী ও সহকারী প্রধান কারারক্ষী মো. খলিলুর রহমানকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এ ঘটনায় দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কর্তৃপক্ষ।

ক্র্যাব সভাপতি মিজান মালিক, সহ-সভাপতি নিত্য গোপাল তুতু ও সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন আরিফসহ কার্যনির্বাহী কমিটির নতুন সদস্যরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে গিয়েছিলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসময় বলেন, ক্র্যাবের নির্বাচন দু’বছর পরপর হওয়া উচিৎ। কারণ এক বছরে কোনো কমিটিই তাদের সকল কর্মকান্ড সম্পন্ন করতে পারে না।

দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে সাংবাদিকদের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে একযোগ কাজ করার আহবান জানান তিনি।

তিনি বলেন, “সাসটেইনেবেল ডেভেলপমেন্টের জন্য প্রয়োজন সাটেইনেবেল পিস। আর সাসটেইনেবেল পিসের জন্য প্রযোজন সাসটেইনেবেল সিকিউরিটি।”

আসাদুজ্জামান কামাল বলেন, দেশের পার্বত্য অঞ্চলসহ বিভিন্ন এলাকায় অপরাধ নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। এছাড়া রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানেও সরকার নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।