কারাগারে ধর্ষণ মামলার আসামির আত্মহত্যা

বরিশাল কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ধর্ষণ মামলার এক আসামির মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।
কর্তৃপক্ষ বলছে, শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) গভীর রাতে কারাগারের শৌচাগারে গিয়ে মশারি ছিঁড়ে রশি বানিয়ে তিনি গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। বাকপ্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে করা মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে হানিফ খলিফা (৪০) নামের ওই ব্যক্তি গত ১ অক্টোবর থেকে কারাগারে ছিলেন। হানিফ খলিফার (৪০) বাড়ি বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার মধুখালী গ্রামে। তিনি বরিশাল নগরের বিমানবন্দর থানার চৌহুতপুর এলাকায় থাকতেন। গত ৩০ সেপ্টেম্বর বিমানবন্দর থানায় হানিফ খলিফার স্ত্রী তাদের বাকপ্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে একটি মামলা করেন।

কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বণিক জানান, কয়েকদিন আগে ডিএনএ টেস্টের জন্য হানিফকে কারাগারের বাইরে নেওয়া হয়েছিলো। এরপর তাকে কারাগারে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়। শনিবার সকালে (১৪ নভেম্বর) তার মরদেহ উদ্ধার করে বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।